হেরে গেল বাংলাদেশ

0
1100

ডাবলিনের ক্লনটার্ফ ক্রিকেট ক্লাবে ত্রিদেশীয় সিরিজে আজ বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ নিউজিল্যান্ড। এই ম্যাচের সর্বশেষ স্কোর ও তথ্য জানা জানা যাবে এখানে—
* বাংলাদেশ: ৫০ ওভারে ২৫৭/৯ (সৌম্য ৬১, মুশফিক ৫৫, মাহমুদউল্লাহ ৫১, মোসাদ্দেক ৪১, তামিম ২৩; বেনেট ৩/৩১, সোধি ২/৪০, নিশাম ২/৬৮)।
নিউজিল্যান্ড: ৪৭.৩ ওভারে ২৫৮/৬ (লাথাম ৫৪, নিশাম ৫২, ব্রুম ৪৮; মোস্তাফিজ ২/৩৩, রুবেল ২/৫৩, মাশরাফি ১/৫৮)।
ফল: নিউজিল্যান্ড ৪ উইকেটে জয়ী ।

* বাংলাদেশের পরের ম্যাচ শুক্রবার। ডাবলিনেই তাদের প্রতিপক্ষ আয়ারল্যান্ড।
* ২৫৮ রানের লক্ষ্য দিয়ে ৮০ রানে নিউজিল্যান্ডের ২ উইকেট ফেলে দিয়েছিল বাংলাদেশ। একটা সময় কিউইদের দরকার ১১৪ বলে ১১১ রান, হাতে ৬ উইকেট। বোলিংটা আরও ভালো হলে এই সমীকরণ কঠিন করে তোলা যেত নিউজিল্যান্ডের সামনে। কিন্তু মাশরাফিরা সেটা পারেননি। পঞ্চম উইকেটে ব্রুম-নিশামের ৭৫ বলে ৮০ রানের জুটি ম্যাচের পার্থক্য গড়ে দিয়েছে। নিশাম করেছেন ৪৮ বলে ৫২ রান আর ব্রুমের রান ৪৮।
* শেষ পর্যন্ত হেরেই গেল বাংলাদেশ। ৪ উইকেট হাতে রেখে জয়ের প্রান্তে পৌঁছে গেছে নিউজিল্যান্ড।

* ৩০ বলে নিউজিল্যান্ডের দরকার ২০ রান।
* নিউজিল্যান্ডের স্কোর ৪৫ ওভারে ২৩৮/৫।
* ব্রুমকে (৪৮) ফিরিয়ে ব্রেক-থ্রু এনে দিলেন রুবেল। কিন্তু বাংলাদেশ পারবে ম্যাচটা জিততে?

* নিউজিল্যান্ডের স্কোর ৩১ ওভারে ১৪৭/৪। কিউইদের দরকার ১১৪ বলে ১১১ রান, হাতে ৬ উইকেট।
* আবারও মোস্তাফিজ! বাংলাদেশের বাঁহাতি পেসারের বলটা খেলতেই পারলেন না রস টেলর। এলবিডব্লু হওয়ার আগে টেলর করেছেন ২৫ রান। ‘ফিজ’ বুঝিয়েছেন, তাঁর ধারে মরচে পড়েনি। জয়ের আশা জেগেছে বাংলাদেশের।

* ২২ ওভারে নিউজিল্যান্ডের স্কোর ১১২/৩। ১৬৮ বলে কিউইদের দরকার ১৪৬ রান, হাতে ৭ উইকেট।
* ২০.৩ ওভারে রুবেলের গুড লেন্থের বলটা পুশ করতে চেয়েছিলেন টম লাথাম। ব্যাটের ভেতরের কানায় লেগে মুশফিকের ক্যাচ হওয়ার আগে কিউই অধিনায়ক করেছেন ৫৪ রান। দুর্দান্ত রুবেল!

* ১৬.৩ ওভারে রান আউট জর্জ ওয়ার্কার (১৭)! সাব্বিরের দুর্দান্ত ফিল্ডিং। ২০১ বলে কিউইদের দরকার ১৭৮ রান, হাতে ৮ উইকেট।

* ১৫ ওভার শেষে নিউজিল্যান্ডের রান ১ উইকেটে ৭৫।

* ৮ ওভারে নিউজিল্যান্ডের স্কোর ৪৪/১। লাথাম অপরাজিত আছেন ১৭ রানে।
* ৬.৬ ওভারে মাহমুদউল্লাহর ক্যাচ বানিয়ে রনকিকে (২৭) ফিরিয়েছেন মোস্তাফিজুর রহমান।
* ২৫৮ রান তাড়া করতে নেমে শুরুটা খারাপ হয়নি নিউজিল্যান্ডের। রনকি-লাথামের ওপেনিং জুটিতে আসে ৩৯ রান।

* সৌম্যের ব্যাটে দারুণ শুরু করেছিল বাংলাদেশ। মুশফিকুর রহিম-মাহমুদউল্লাহরাও আশা জাগিয়েছিলেন। কিন্তু ম্যাচের গুরুত্বপূর্ণ সময়গুলোতেই বারবার উইকেট হারিয়ে স্কোরটা আশানুরূপ হয়নি বাংলাদেশের। মূল ব্যাটসম্যানদের তিনজন ফিফটি পেরোনোর পরও বাংলাদেশের স্কোর কোনোমতে আড়াই শ পেরিয়েছে। ৫০ ওভারে বাংলাদেশের রান ২৫৭/৯। রানরেট ৫.১৪।
* বাংলাদেশ: ৫০ ওভারে ২৫৭/৯ (সৌম্য ৬১, মুশফিক ৫৫, মাহমুদউল্লাহ ৫১, মোসাদ্দেক ৪১, তামিম ২৩; বেনেট ৩/৩১, সোধি ২/৪০, নিশাম ২/৬৮)।
ম্যাচ জিততে দুর্দান্ত বোলিং করতে হবে মাশরাফিদের। বিস্তারিত পড়ুন:
টার্গেট ২৫৮ রান 

* শেষ ৫ ওভারে বাংলাদেশ যোগ করেছে ৩৮ রান, শেষ ১০ ওভারে উঠেছে ৬৭ রান।
* ৪৯.১ ওভারে বেনেটকে তুলে মারতে গিয়ে শর্ট ফাইন লেগে র‍্যাঞ্চের ক্যাচ হয়েছেন মোসাদ্দেক (৪১)।
* ৪৭.২ ওভারে বেনেটকে উড়িয়ে মারতে গিয়ে মাহমুদউল্লাহ আউট ৫১ রানে। মাহমুদউল্লাহ-মোসাদ্দেকের ষষ্ঠ উইকেট জুটি যোগ করেছে ৬১ বলে ৬১ রান।

* মাহমুদউল্লাহ অপরাজিত ৪৬ ও মোসাদ্দেক আছেন ২৫ রানে।
* ৪৫ ওভার শেষে বাংলাদেশের স্কোর ২১৯/৫। রানরেট কিছুটা বেড়েছে, ৪.৮৬। সর্বশেষ ৫ ওভারে উঠেছে ২৯ রান। প্রত্যাশা অনুযায়ী স্লগ করতে পারছে না বাংলাদেশ।

* ৪০ ওভার শেষে বাংলাদেশের রান ১৯০/৫। রানরেট ৪.৭৫। শেষ ১০ ওভারে বাংলাদেশ কত তুলতে পারে দেখা যাক।

* বোলিংয়ে বাংলাদেশকে এগিয়ে রাখছে অভিজ্ঞতা। ওয়ানডেতে মাশরাফির উইকেট সংখ্যা নিউজিল্যান্ডের এই দলের সবার উইকেটের যোগফলের দ্বিগুণ। বিস্তারিত পড়ুন:

নিউজিল্যান্ডের দ্বিগুণ উইকেট মাশরাফির একার! 

* মাহমুদউল্লাহ অপরাজিত ৩৩ রানে। নতুন ব্যাটসম্যান মোসাদ্দেক হোসেন।
* মুশফিকও আউট! ৩৭.১ ওভারে নিশামের বলে রনকির ক্যাচ হওয়ার আগে বাংলাদেশ উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান করেছেন ৫৫ রান।
* চাপ সামলে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিচ্ছেন মুশফিক-মাহমুদউল্লাহ। মুশফিক অপরাজিত ৫৪ রানে আর মাহমুদউল্লাহ আছেন ২৬ রানে। দুজনের অবিচ্ছিন্ন পঞ্চম উইকেট জুটিতে উঠেছে ৪৪ রান।
* ৩৫ ওভার শেষে বাংলাদেশের রান ১৬৩/৪।
* চাপের মুখে আবারও লড়াকু মুশফিককে দেখা গেল। পেয়েছেন ২৪তম ওয়ানডে ফিফটি।
* পথ দেখাচ্ছেন মুশফিকুর রহিম। বাংলাদেশ উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান অপরাজিত ৩৮ রানে।

* ৩০ ওভার শেষে বাংলাদেশের স্কোর ১৩৬/৪।
* ২৮.৪ ওভারে সোধির বলে আউট সাকিব আল হাসান। ফেরার আগে বাঁহাতি অলরাউন্ডার করেছেন ৬ রান। চাপে বাংলাদেশ!

* ২৫ ওভার শেষে বাংলাদেশের রান ১১৮/৩।
* ২৪.৫ ওভারে ফিরলেন সৌম্য। ইশ সোধির বলে আউট হওয়ার আগে বাঁহাতি ওপেনারের রান ৬১।

* ২০ ওভার শেষে বাংলাদেশের স্কোর ৯৬/২।
* ১৬.৪ ওভারে সাব্বির বোল্ড। এই ম্যাচেও ব্যর্থ এই টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান। সাব্বির গত ম্যাচে করেন ০, আজ ১।
* সৌম্যর ফিফটি। ওয়ানডে ক্যারিয়ারের পঞ্চম ফিফটি তুলে নিলেন বাঁহাতি ওপেনার। সৌম্য অপরাজিত ৫০ রানে।
* ১৫.২ ওভারে তামিম আউট! ধীর-লয়েই এগোচ্ছিলেন বাঁহাতি ওপেনার। জিমি নিশামের অফ স্টাম্পের বাইরের বল কাট করতে গিয়ে মানরোর ক্যাচ হওয়ার আগে তামিমের রান ২৩।

* ১৫ ওভার শেষে বাংলাদেশের রান ৬৯/০।
* তামিম অপরাজিত ১৬ রানে আর সৌম্য উইকেটে আছেন ৩৫ রানে।
* বাংলাদেশকে দারুণ শুরু এনে দিয়েছেন দুই ওপেনার তামিম ইকবাল-সৌম্য সরকার। অবিচ্ছিন্ন ওপেনিং জুটিতে এসেছে ১১ ওভারে ৫২ রান।
* এক ম্যাচের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা ফিরেছেন দলে। একাদশের বাইরে তাসকিন আহমেদ।
* বৃষ্টির পূর্বাভাস থাকলেও টসের সময় ডাবলিনের আকাশে ঝকঝকে রোদই দেখা গেছে। টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছে নিউজিল্যান্ড।